You are currently viewing ফ্রি এবং পেইড মার্কেটিং এর মধ্যে পার্থক্য ও সুবিধা 

ফ্রি এবং পেইড মার্কেটিং এর মধ্যে পার্থক্য ও সুবিধা 

আপনি কি আপনার ওয়েবসাইট টি কে গুগলে র‍্যাংক করাতে চাচ্ছেন অথবা সোশ্যাল মিডিয়া তে আপনার বিজনেসের বিজ্ঞাপন সবার কাছে পৌঁছে দিতে চাচ্ছেন? কিন্তু বুঝে উঠতে পারছেন না ওয়েবসাইট র‍্যাংক করাতে সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন (SEO) নাকি সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং (SEM) পদ্ধতি কে বেঁছে নিবেন। তাহলে এই পোস্ট টি আপনার জন্য। কেননা এখানে ফ্রি এবং পেইড মার্কেটিং এর মধ্যে পার্থক্য এবং সুবিধা নিয়ে আলোচনা করা হবে। 

ফ্রি এবং পেইড মার্কেটিংঃ

ফ্রি এবং পেইড মার্কেটিং এর মধ্যে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন, সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং, সোশ্যাল মিডিয়া এডভারটাইজিং অন্যতম। নিচে এদের মধ্যে পার্থক্য ও সুবিধা নিয়ে আলোচনা করা হলো। 

গুগলে কোনো ওয়েবসাইট কে র‍্যাংক করানোর ক্ষেত্রে ২ ধরনের মেথড ব্যবহার করা হয়। একটি হলো ফ্রি মেথড এবং অপরটি পেইড মেথড। অর্থাৎঃ- 

  • সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন- ফ্রি মেথড 
  • সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং – পেইড মেথড 

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনঃ

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন হলো এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে একটি ওয়েবসাইট কে গুগলের ফার্স্ট পেজে র‍্যাংক করানো হয়। এটি একটি ফ্রি মেথড অর্থাৎ আপনার ওয়েবসাইট কে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের মাধ্যমে গুগলের ফার্স্ট পেজে আনতে গুগল কে কোনো টাকা পে করতে হবে না। একজন দক্ষ এস.ই.ও এক্সপার্ট দ্বারা খুব সহজে আপনার ওয়েবসাইট কে গুগলের ফার্স্ট পেজে র‍্যাংক করাতে পারবেন। দক্ষ এস.ই.ও এক্সপার্ট হতে হলে তাকে অবশ্যই অন পেজ, অফ পেজ, টেকনিক্যাল, লোকাল এস.ই.ও সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা থাকতে হবে। 

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন

সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিংঃ 

আপনি গুগলে যখন কোনো কিওয়ার্ড লিখে সার্চ করেন তখন নিশ্চয়ই খেয়াল করেছেন কিছু কিছু ওয়েবসাইটের আর্টিকেল এর পাশে এড লেখা থাকে। আপনার মনে কখনো প্রশ্ন জাগেনি কেনো এড লেখা রয়েছে? যে ওয়েবসাইটের আর্টিকেলগুলোর পাশে এড লেখা থাকে সেই ওয়েবসাইটগুলো তাদের আর্টিকেল কে গুগলের ফার্স্ট পেজে র‍্যাংক করানোর জন্য টাকা দেয়। আর গুগল কে টাকা দিয়ে আর্টিকেল কে গুগলের ফার্স্ট পেজে র‍্যাংক করানোর প্রক্রিয়া-ই হলো সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং বা SEM. কেও যখন এড লেখা আর্টিকেল টি তে ক্লিক করবে ঠিক তখনই গুগল কে টাকা দিতে হবে অর্থাৎ গুগল কে ভিজিটরের ক্লিক অনুযায়ী ওয়েবসাইট এর মালিককে টাকা পেমেন্ট করতে হচ্ছে, একে বলা হয় সিপিসি বা কস্ট পার ক্লিক। প্রতি ক্লিক এ আপনাকে অনেক টাকা খরচ করতে হবে। আপনার ওয়েবসাইট এর পণ্যগুলো যত কস্টলি হবে তত প্রতি ক্লিকে আপনাকে বেশি টাকা দিতে হবে। সাধারণত কিছু বড় বড় ব্যবসায়ী রয়েছে যারা তাদের ওয়েবসাইট কে দ্রুত র‍্যাংক করানোর জন্য উঠে পড়ে লাগে তারাই এই পেইড মার্কেটিং মেথড টি বেশি ব্যবহার করে থাকে। কারণ এটি গুগলে র‍্যাংক করানোর একটি দ্রুততম প্রক্রিয়া।

 

 

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এবং সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং এর ভেতর পার্থক্যঃ 

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এবং সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং এর পার্থক্য হলোঃ- 

  • সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন হলো একটি ফ্রি মার্কেটিং মেথড অপরদিকে সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং হলো একটি পেইড মেথড।
  • ওয়েবসাইট কে এস.ই.ও এর মাধ্যমে গুগলের ফার্স্ট পেজে র‍্যাংক করাতে একজন দক্ষ এস.ই.ও এক্সপার্ট দরকার। কিন্তু এস.ই.এম এর ক্ষেত্রে  কোনো এস ই ও এক্সপার্ট লাগে না।
  • এস.ই.ও এর মাধ্যমে কোনো ওয়েবসাইট কে র‍্যাংক করালে কোনো ভিজিটর যদি কোন আর্টিকেল এ ক্লিক করে তাহলে তার জন্য গুগল কে কোনো টাকা দিতে হয় না। অপরদিকে এস.ই.এম প্রক্রিয়ায় ডেভেলপকৃত ওয়েবসাইট এর আর্টিকেলে প্রতি ক্লিকের জন্য গুগল কে অনেক টাকা দিতে হয়।
  • সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর মাধ্যমে ওয়েবসাইট র‍্যাংক করালে আপনার খরচ কম হবে। অপরদিকে সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনার খরচ বেশি হবে।
  • ওয়েবসাইট এর প্রোডাক্ট অনুযায়ী এস.ই.ও এর কস্ট নির্ভর করে না কিন্তু ওয়েবসাইট এর প্রোডাক্ট ভেদে এস.ই.এম এর কস্ট নির্ভর করে। 
  • সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর মাধ্যমে ওয়েবসাইট কে র‍্যাংক করাতে সময় একটু বেশি লাগে কিন্তু সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং এর মাধ্যমে অল্প সময়েই ওয়েবসাইট গুগলের ফার্স্ট পেজে র‍্যাংক করানো যায়।

আপনার ওয়েবসাইট এর জন্য SEO নাকি SEM মার্কেটিং এর সুবিধা বেশিঃ 

আপনার ওয়েবসাইট এর জন্য সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন সবচেয়ে ভালো একটি প্রক্রিয়া। এটি এস.ই.এম থেকে একটু সময় বেশি লাগে ঠিক কিন্তু আপনি যদি একজন ভালো এস.ই.ও এক্সপার্ট দ্বারা আপনার ওয়েবসাইট কে গুগলের ফার্স্ট পেজে র‍্যাংক করাতে পারেন তাহলে সেটা আর নিচে ডাউন করার কোনো ভয় নেই। কিন্তু আপনি যদি এস.ই.এম কে বেঁছে নেন গুগলের ফার্স্ট পেজে র‍্যাংক করানোর জন্য তাহলে এটি এক সময় গুগলের ফার্স্ট পেজে নাও দেখাতে পারে। কারণ কেও যদি গুগল কে আপনার থেকে বেশি টাকা দেয় তার ওয়েবসাইট কে গুগলের ফার্স্ট পেজে শো করানোর জন্য তাহলে আপনার ওয়েবসাইট টি তখন গুগল আর সবার প্রথমে শো করবে না। তাই একজন ভালো এস.ই.ও এক্সপার্ট দ্বারা এস.ই.ও এর মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইট কে গুগলের ফার্স্ট পেজে র‍্যাংক করান। 

সোশ্যাল মিডিয়া এডভারটাইজিংঃ 

সোশ্যাল মিডিয়ার কথা বললেই বাংলাদেশে সবচেয়ে জনপ্রিয় ফেসবুকের কথা মনে পরে। তাই ফেসবুক কে কেন্দ্র করেই গড়ে উঠেছে নানা ধরনের ব্যবসা। আর আপনার বিজনেস কে সবার কাছে পৌঁছে দিতে, সেল জেনারেট করতে ফেসবুকে এ্যাড তৈরি করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ্যাড বুস্টিং এর মাধ্যমে আপনার বিজনেস এর প্রোডাক্ট সবার কাছে পৌঁছে যাবে এবং অনেক বেশি কাস্টমার পাবেন আগের থেকে৷ ফেসবুকে আপনি নিজেই এ্যাড দিতে পারেন ফেসবুক এ্যাড ম্যানেজার এর মাধ্যমে অথবা লোক হায়ার ও করতে পারেন এই কাজ টার জন্য। 

মার্কেটিং

ফেসবুকে এড তৈরি করাঃ 

আমরা ফেসবুকে যে স্পন্সরড লেখা এডগুলো দেখে থাকি সেগুলো কিভাবে তৈরি করে সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো। 

  • এডের ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো এড কনটেন্ট। ভিডিও কন্টেন্ট টি যত আকর্ষণীয় হবে তত বেশি রেস্পন্স পাবেন গ্রাহকদের।
  • ভিডিও থাম্বনেইল সুন্দর দেখেই মানুষ এডে ক্লিক করে তাই এর দিকে নজর দেওয়া উচিৎ। 
  • এডের একটি নাম দিন। 

খুব সহজেই ম্যানুয়ালি আপনি কাজ টি করতে পারবেন। ফেসবুকে এড আপনি ফ্রিতেই দিতে পারবেন। তবে ভালো ফলাফলের জন্য a/b testing দিতে হয়। location, targeting ইত্যাদি চেঞ্জ করে আপনি দেখতে পারেন কোন টা ভালো ফলাফল দিচ্ছে। তাই টেস্টিং এর জন্য কিছু বাজেট রাখা ভালো। পরবর্তী তে এটি আপনাকে অধিক মুনাফা অর্জনে সাহায্য করবে। 

ফেসবুক ফ্রি এবং পেইড এডের ভেতর পার্থক্য আছেঃ 

ফেসবুকে ফ্রি মার্কেটিং করলে  তা টার্গেটেড কাস্টমার এর কাছে নাও পৌঁছাতে পারে। কিন্তু পেইড এড এর মাধ্যমে তা টার্গেটেড কাস্টমার এর কাছে পৌঁছে যায় এবং আপনার সেল বাড়ায়। ফেসবুকে এখন সবাই প্রতিযোগিতা করে বিজনেস চালাচ্ছে তাই ফ্রি মার্কেটিং চালু করার মাধ্যমে আপনার এড সবার আড়ালে পরে থাকবে। তাই আমি রিকমেন্ড করবো একটা ভালো এজেন্সি থেকে আপনার বিজনেস এর জন্য এড তৈরি করে নিন। কিছু টাকার বিনিময়ে আপনার মনুফা দ্বিগুণ বেড়ে যাবে। 

পরিশেষেঃ 

আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইট এর জন্য  একজন দক্ষ এস.ই.ও এক্সপার্ট খুঁজে থাকেন যে SEO এর সকল নিয়ম মেনে আপনার ওয়েবসাইট টি কে গুগলের ফার্স্ট পেজে র‍্যাংক করিয়ে দিবে তাহলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। এর পাশাপাশি ফেসবুক অ্যাডভার্টাইজিং সার্ভিস এর জন্য আমাদের সাথে আজই যোগাযোগ করুন। সেবা নিন, ব্যবসায় পরিচিতি বাড়ান। 

 

Facebook Comment