দারাজ সেলারদের জন্য ই-কমার্স ওয়েবসাইট কেন জরুরি

দারাজ সেলারদের জন্য ই-কমার্স ওয়েবসাইট কেন জরুরি

বাংলাদেশে বর্তমানে ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মগুলোর মধ্যে অন্যতম শক্তিশালী অবস্থানে আছে দারাজ। বহুজাতিক ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান আলীবাবা নিয়ন্ত্রানাধীন দারাজ বর্তমানে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, মিয়ানমার ও নেপালে সফলভাবে তাঁদের কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। মূলত বিক্রেতা এবং ক্রেতার মাঝে মধ্যস্ততাকারী মাধ্যম হিসেবে কাজ করে থাকে দারাজ। সময়ের সাথে সাথে দারাজে ক্রেতা বা গ্রাহক সংখ্যা যেমন বৃদ্ধি পেয়েছে, ঠিক তেমনি বৃদ্ধি পেয়েছে বিক্রেতা বা দারাজ সেলার এর সংখ্যা। অনেকেই দারাজে পণ্য বিক্রয়ের মাধ্যমে উদ্যোক্তা হিসেবে নিজেকে অন্তর্ভুক্ত করেছে এবং স্বাবলম্বী হচ্ছে।  খুব সহজেই, কম পুঁজিতে আপনিও হতে পারবেন দারাজ সেলার। আপনি দারাজে ডিজিটাল সেবা, মল সেলার, লোকাল সেলার, গ্লোবাল সেলার হিসেবে সাইন আপ করে নির্দিষ্ট নিয়মনীতি মেনে ব্যবসা কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনি ব্যক্তি কিংবা দারাজ অনলাইন শপিং এর পক্ষ থেকে  সেলার হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হতে পারেন। 

দারাজ সেলার হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পর পণ্য বিক্রয়ের মাধ্যমে আয় করতে পারবেন। তবে আপনি যদি উদ্যোক্তা হিসেবে কিংবা আপনার প্রতিষ্ঠানটিকে ধীরে ধীরে একটি ব্রান্ড হিসেবে উপস্থাপন করতে চান তাহলে দারাজের পাশাপাশি আপনার একটি নিজস্ব ই-কমার্স ওয়েবসাইট থাকাও জরুরী। আপনি চাইলে আমাদের ডিজাইনকৃত রেডি ই-কমার্স ওয়েবসাইট গুলো দেখতে পারেন। 

তাহলে জেনে নেওয়া যাক, একজন দারাজ সেলার হিসেবে আপনার জন্য একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট কতটা ফলপ্রসূঃ

বিকল্প আয়ের পথ

দারাজে একই ধরনের পণ্য বিক্রয়কারী সেলারদের সংখ্যা কিন্তু অনেক। অর্থাৎ ধরুন আপনার শপে ক্যাসিনো ব্রান্ডের একটি ঘড়ি সংগ্রহে আছে, ঠিক ঐ একই ঘড়ি কিন্তু অন্য শপেগুলোতেও থাকতে পারে। সেক্ষেত্রে কিন্তু দারাজে সেলারদের মাঝে বেশ ভাল প্রতিযোগিতাই আছে বলা চলে।  এক্ষেত্রে আপনার যদি একটি নিজস্ব ই-কমার্স ওয়েবসাইট থাকে তবে তা আপনার বিকল্প আয়ের পথ হিসেবে ভূমিকা রাখতে পারে। আপনি কিন্তু আপনার ওয়েবসাইটে ঐ একই পণ্য প্রদর্শন করতে পারেন। এক্ষেত্রে দারাজ থেকে আপনার বিক্রয় যদি কমও হয়, আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিক্রয় বৃদ্ধি করে নিশ্চিত ক্ষতির হাত থেকে প্রতিষ্ঠানকে বাঁচতে পারেন।

ব্রান্ড হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা

বর্তমানে এফ-কমার্স বা ফেসবুক কমার্স ও কিন্তু অনেক জনপ্রিয়। সেক্ষেত্রে উদ্যোক্তা কিংবা বিক্রেতার সংখ্যাও কিন্তু অত্যাধিক৷ এছাড়া দারাজ কিংবা অন্যান্য ই-কমার্স মার্কেটপ্লেসে সেলারের সংখ্যাও কিন্তু কম নয়। সময়ের সাথে সাথে অনলাইনে উদ্যোক্তা যেমন বৃদ্ধি পাচ্ছে, আবার তেমনি হারিয়েও যাচ্ছে অনেকে। 

তাই একজন অনলাইন উদ্যোক্তা হিসেবে আপনার অবশ্যই লক্ষ্য থাকবে আপনার ব্যবসাটি যেন টেকসই ও দীর্ঘমেয়াদী হয়। সেক্ষেত্রে আপনার নিজস্ব ওয়েবসাইট কিন্তু আপনার ব্যবসাটিকে আলাদাভাবে অনলাইনে পরিচিতি লাভ করাতে পারে। আপনার ই-কমার্স ওয়েবসাইটটিকে আপনি নিজস্ব রূচির আঙ্গিকে তৈরী করতে পারেন। এটি ধীরে ধীরে আপনার প্রতিষ্ঠানটিকে ব্রান্ড হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে ভূমিকা রাখবে।

গ্রাহক বলয় তৈরী

দারাজে গ্রাহক কিন্তু পণ্যমুখী বেশি। অর্থাৎ আপনার শপ অনেকক্ষেত্রেই এখানে মুখ্য বিষয় নয়। গ্রাহকের কাছে পণ্যটাই এখানে প্রাধান্য পায়। যেমন, ধরুন কোনো গ্রাহক একটি ট্রাইপড কিনতে চাচ্ছে , সেক্ষেত্রে সে তাঁর মন মতো নির্দিষ্ট ব্রান্ডের ট্রাইপডের নাম লিখে সার্চ দিবে। অতঃপর একটি নির্দিষ্ট পেইজে প্রদর্শিত ট্রাইপডগুলো থেকে যেকোনো একটি বাছাই করে কিনবে। এক্ষেত্রে খুব কম সংখ্যক মানুষই কিন্তু শপকে বিবেচনায় আনবে।  পণ্যের মূল মালিকানা আপনার থাকলেও গ্রাহক কিন্তু দারাজ থেকে পণ্যটি ক্রয় করা হয়েছে বলে আশ্বস্ত থাকেন। কারণ পণ্যটি প্রদর্শন থেকে ক্রেতার কাছে প্যাকেজ শিপিং পুরোটাই দারাজ কতৃক সম্পন্ন হয়। তাই নির্দিষ্ট গ্রাহক বেজ তৈরী অনেক সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। 

আর আপনার নিজস্বতার জায়গাটিও কিন্তু অপূরণীয় থাকে। এক্ষেত্রে আপনার একটি ওয়েবসাইট থাকা জরুরী, যেন আপনি আলাদা করে  আপনার পণ্য উপস্থাপন করতে পারেন এবং ধীরে ধীরে গ্রাহক নির্ভরশীলতা তৈরী করে বিক্রয় বৃদ্ধি করতে পারেন। 

দ্রুত বিক্রয় বৃদ্ধি

আমরা ইতোপূর্বেই জেনেছি যে, দারাজ সেলার হওয়ার পাশাপাশি আপনার যদি একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট থাকে, তবে তার মাধ্যমে আপনি পণ্য বিক্রয় করে অতিরিক্ত আয় করতে পারবেন। এক্ষেত্রে অন্যতম সুবিধা হচ্ছে মার্কেটিং। প্রচলিত একটি কথা আছে যে, প্রচারেই প্রসার। আপনার পণ্য সম্পর্কিত তথ্য আপনি যত বেশি মানুষের নিকট পৌছে দিবেন, আপনার বিক্রয়ের সম্ভাবনা তত বেড়ে যাবে। 

এক্ষেত্রে আপনার যদি একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট থাকে, তবে আপনি যেমন অরগ্যানিক ভাবে মার্কেটিং করতে পারবেন, ঠিক তেমনি সামান্য অর্থ ব্যয় করে পেইড মার্কেটিং করেও কাঙ্ক্ষিত গ্রাহকের নিকট পণ্য প্রদর্শন করে বিক্রয় বৃদ্ধি করতে পারেন। অর্থাৎ সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন ছাড়াও সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং তথা পে-পার ক্লিক এডভার্টাইজিং ইত্যাদির মাধ্যমে আপনার পণ্যটিকে কাঙ্ক্ষিত গ্রাহকদের নিকট প্রচার করতে পারেন। এছাড়াও ই-মেইল মার্কেটিং সহ নানাবিধ সুবিধা তো থাকছেই। 

নিজস্বতা

আপনার ব্রান্ডের লোগো বা কালার এর সাথে সামঞ্জস্য রেখে আপনার ওয়েবসাইটটিকে নিজস্ব রূচিতে নান্দনিকভাবে উপস্থাপন করতে পারবেন। এক্ষেত্রে ইয়াপ্পোবিডি আপনাকে নির্ঝঞ্জাটভাবে সুন্দর এবং আকর্ষণীয় ওয়েবসাইটের নিশ্চয়তা দিচ্ছে। ইয়াপ্পোবিডি তে আপনি পাচ্ছেন বিভিন্ন রেডি ওয়েবসাইট। 

এক্ষেত্রে আপনার ওয়েবসাইটটিতে আপনি নিজের মর্জিমতো পণ্যর প্রদর্শন করতে পারবেন। পণ্যগুলোকে দাম, মান ইত্যাদি নানা দিক অনুযায়ী বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ভাগ করে সাজাতে পারছেন। সুবিন্যস্তভাবে সাজানো ওয়েবসাইট গ্রাহককে পণ্য কিনতে বেশি আকৃষ্ট করে।  পাশাপাশি গ্রাহকরা যদি নির্বিঘ্নে কোনো পণ্য অর্ডার করতে পারে এবং আপনি যদি সঠিক সময়ে পণ্য পৌছাতে পারেন তবে গ্রাহকের কাছে ব্যাপারটা বেশি উপভোগ্য হয়। ভবিষ্যতে পণ্য কেনার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। ফলে দারাজের পাশাপাশি আপনার ব্যবসার আলাদা একটা নিজস্বতা চলে আসে।

 

পরিশেষে, 

আপনি যদি একজন দারাজ সেলার হয়ে থাকেন, তবে ব্যবসার বর্তমান এবং ভবিষ্যত এই সার্বিক দিক বিবেচনায় এনে একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট তৈরী করুন। শুরুটা বিকল্প আয়ের পথ হিসেবে হলেও ধীরে ধীরে ওয়েবসাইটটির মাধ্যমে আপনার প্রতিষ্ঠানটিকে ব্রান্ড হিসেবে উপস্থাপন করুন। আপনার বিজনেস এর জন্য কম খরচে একটা ই-কমার্স ওয়েবসাইট বানিয়ে নিতে চান তাহলে আজই যোগাযোগ করুন ইয়াপ্পোবিডি এর সাথে।আর খুব সহজেই YappoBD থেকে আপনার পছন্দমতো মানসম্মত ই-কমার্স ওয়েবসাইট বাছাই করে, বিক্রয় বৃদ্ধি করুন।

 

Facebook Comment