রেডিমেড ওয়েবসাইট কি? রেডি ওয়েবসাইট এর সুবিধা কি?

রেডিমেড ওয়েবসাইট কি? রেডি ওয়েবসাইট এর সুবিধা কি?

বর্তমানে প্রযুক্তির কল্যাণে আমরা বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা এখন অনলাইনের মাধ্যমে সম্পাদনা করে থাকি। ফেইসবুকের মাধ্যমে আমরা অনেকে ব্যবসা পরিচালনা করে থাকলেও একটি ওয়েবসাইট আমাদের ব্যবসাকে বহুগুণে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে। কিন্তু অনেকে আমরা মনে করি, একটি ওয়েবসাইট বানাতে অনেক সময় এবনং অর্থের প্রয়োজন হয়। আপনি কি জানেন? আপনি আপনার সাধ্যের মধ্যে খুব কম সময়ে এবং অল্প অর্থ ব্যয় করেই আপনার ব্যবসার জন্য একটি রেডি ওয়েবসাইট নিয়ে নিতে পারেন “ইয়াপ্পোবিডি থেকে।

চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক  “রেডিমেড ওয়েবসাইট বলতে আসলে কি বোঝানো হয়”

ইন্টারনেটে মূলত ওয়েবসাইট হলো এমন একটি স্থান, যেখানে আপনি আপনার ব্যক্তিগত মতামত, ব্যবসায়িক কাজ, কোন পণ্যের প্রমোশন অথবা আপনার যে কোনো প্রতিভা বিশ্বের কাছে উপস্থাপন করে অনলাইনে সবার সাথে শেয়ার করতে পারেন।আমরা ইন্টারনেট সংযোগের মাধ্যমে মোবাইল বা কম্পিউটার দিয়ে  বিভিন্ন ওয়েব সাইটে প্রবেশ করতে পারি।

ওয়েবসাইট প্রধানত দুই ধরনের

রেডিমেড ওয়েবসাইট কি সেটা বুঝতে হলে আমাদের আগে স্ট্যাটিক ও ডায়নামিক ওয়েবসাইটের মধ্যে পার্থক্য জানতে হবে।

১.স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট(static website)

স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট কি?নাম থেকেই বোঝা যাচ্ছে static website বলতে বোঝায় যেসব সাইট পরিবর্তন করা হয় না, তথ্যগুলো নির্দিষ্ট হয় তাদেরকে স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট বলে।

এক্ষেত্রে আপনি সাইট এর তথ্য গুলো একবারেই আপডেট করে রাখবেন।আপনার ওয়েবসাইট এর পেইজ গুলোতে আপনার প্রয়োজনীয় যেকোন ইমেজ,টেক্সট বা ভিডিও যুক্ত করতে পারবেন যে গুলো পরিবর্তন করার দরকার হয়না।

যেমন, আপনি যদি আপনার নিজের জন্য একটি বায়োডাটা নিয়ে প্রোফাইল সাইট তৈরি করেন অথবা আপনার কাজ গুলো দিয়ে একটা পোর্টফোলিও সাইট তৈরি করেন তবে এটা নিশ্চয়ই প্রতিদিন আপডেট করার প্রয়োজন হবেনা।এটাই হচ্ছে স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট।এক্ষেত্রে পেজ সংখ্যা নির্দিষ্ট থাকার কারণে ওয়েবপেজ লোডিং স্পিড অনেক বেশি পাওয়া যায়।

১.ডায়নামিক ওয়েবসাইট(Dynamic website)

আপনি একটা ওয়েবসাইটে ভিজিট করার পর অনেক গুলো পেইজ দেখতে পান।আচ্ছা তাহলে এই ওয়েবপেইজ আর ওয়েবসাইট এর মধ্যে পার্থক্য কি? 

সহজ করে বলছি,আপনার বইটি যদি হয় একটা ওয়েবসাইট তাহলে এর প্রতিটি পৃষ্ঠা হচ্ছে ওয়েবপেইজ। আবার এইযে এখানে এই ব্লগ টি পড়ছেন একটা ওয়েবপেইজে আর yappobd.com হচ্ছে ওয়েবসাইট।

ডাইনামিক ওয়েবসাইট (Dynamic website) এর ডেটার মান ওয়েবপেইজ লােডিং বা চালু করার পর পরিবর্তন করা যায়। এই ওয়েবসাইট গুলোর কিছু সুবিধা হচ্ছে,ব্যবহারকারীর চাহিদা অনুযায়ী পেইজ এর কন্টেন্ট পরিবর্তন হতে পারে,তথ্য বা বিষয়বস্তু আপডেট খুব দ্রুত করা যায় এবং ব্যবহারকারীর নিকট হতে ইনপুট নেওয়ার ব্যবস্থা থাকে। ডায়নামিক ওয়েবসাইট অনেক বেশী তথ্য বহুল হতে পারে ফলে ব্যবহারকারীর ব্রাউজারে লােড হতে বেশি সময় নেয়।

রেডিমেড ওয়েবসাইট কি?

নাম থেকেই বুঝে গেছেন,রেডিমেড অর্থ আগে থেকে তৈরি করা। আমাদের আশেপাশে অনেক ওয়েব ডেভেলপার আছেন যারা রেডিমেড ওয়েবসাইট থিম তৈরি করে সেগুলো বিক্রি করেন। এখন এই রেডিমেড থিম কিনে নিয়ে আপনি আপনার মত করেই ওয়েবসাইট সাজাতে পারেন।

ভাবছেন রেডিমেট মানেই আগে থেকে সব ডিজাইন করা?হুম এটা হচ্ছে প্রি-কোডেড। প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ এর সাহায্যে থিম এর ডিজাইন করেন একজন ওয়েব ডেভেলপার।তবে চাইলে আপনি নিজেই একটা রেডিমেড থিম এর আউটলুক চেঞ্জ করতে পারেন। ছোট ছোট বিষয় গুলোর জন্য কোডিং এর সামান্য চেঞ্জ আপনি নিজেই করতে পারবেন।

রেডিমেড ওয়েবসাইট এর সুবিধা গুলো কি কি?

  1. যাদের বাজেট খুবই অল্প তাদের জন্য রেডিমেড ওয়েবসাইট বেস্ট।তাছাড়া যাদের ওয়েব ডেভেলপমেন্ট নিয়ে অল্প জ্ঞান আছে তারাও খুব সহজে রেডিমেড থিম ব্যবহার করতে পারেন। তাই আপনার নতুন বিজনেস হলে YappoBD থেকে আজই একটা রেডিমেড ওয়েবসাইট নিয়ে নিতে পারেন।
  2. রেডিমেড ওয়েবসাইট তৈরি করতে সময় ও কম লাগে। কারন এতে থিম আগেই কোডিং করা থাকে। আপনার হাতে কম সময় থাকলে অবশ্যই রেডিমেড ওয়েবসাইট বেস্ট।
  3. আমরা কোন কাজে প্রথমবার সফল হইনা সবসময়। তাই কিছু কিছু প্লান টেস্ট করার ও দরকার হয়। আপনি অল্প টাকা দিয়ে একটা রেডিমেট ওয়েবসাইট তৈরি করে এটা দিয়েই আপনার প্লান টিকে যাচাই করে নিতে পারেন। দেখতে পারেন অডিয়েন্সদের কাছ থেকে ভালো রেসপন্স পাচ্ছেন কিনা।
  4. রেডিমেড থিমে অনেক মডার্ন ডিজাইন ও লে-আউট আছে।আপনার পছন্দ মত লে-আউট নির্বাচন করতে পারবেন আর নিজেই খুব সহজে এটি ইনস্টল করতে পারবেন।

ইকমার্স বা এফ কমার্স এর জন্য রেডিমেড ওয়েবসাইট কেন দরকার?

আপনি যদি নতুন ইকমার্স এর ব্যবসা শুরু করে। তাহলে আমি বলবো অবশ্যই  আপনি আজই একটা রেডিমেড ওয়েবসাইট কিনে ফেলুন আপনার বিজনেস এর জন্য। রেডিমেড ইকমার্স থিমে অনেক ফিচার থাকে।প্রোডাক্ট আপলোড, বাতিল, আপডেট ইত্যাদি খুব সহজে করতে পারবেন। আপনার বিজনেস এর বিক্রয় বাড়নোর জন্য কুপন/অফার তৈরি, বাতিল, আপডেট করার সুবিধা আছে।

নতুন অর্ডার বিস্তারিত, অর্ডার স্লিপ প্রিন্ট, অর্ডারের অবস্থা পরিবর্তন, কমপ্লিটেড, পেনডিং, ডেলিভারি ইত্যাদি খুব সহজে করতে পারবেন রেডিমেড ওয়েবসাইটের মাধ্যমেই। গ্রাহক এর সকল তথ্য সংরক্ষন, হিসাব রিপোর্ট, নতুন নিবন্ধন, বাতিল, আপডেট ইত্যাদি সহজে করা যায় ইকমার্স এর থিম গুলো দিয়ে।তারপরেও প্রয়োজন অনুযায়ী যে কোন সময় নতুন অপশন যুক্ত করে নিতে পারবেন।

তাহলে রেডিমেড ওয়েবসাইটের অসুবিধা গুলো কি কি?

  1. রেডিমেড থিম সম্পুর্ন ইউনিক হয়না।আপনি কোডিং এর কিছু অংশ পরিবর্তন করতে পারবেন তবে কখনও সম্পুর্ন ইউনিক করতে পারবেন না।
  2. আপনি সম্পুর্ন থিম কাস্টমাইজেশন করতে পারবেন না।রেডিমেড থিম এর শুধু অল্প কিছু অংশ পরিবর্তন করতে পারবেন। 
  3. রেডিমেড থিমে অনেক বেশি ফাংশন থাকে যার ফলে ওয়েবসাইট ইউজার এর ব্রাউজারে লোড নিতে বেশি সময় লাগে।

আজকের আলোচনা থেকে আপনি নিশ্চয় ভালোভাবে বুঝে গেছেন রেডিমেড ওয়েবসাইট বলতে আসলে কি বোঝানো হয়। তাই আপনার প্রয়োজনীয়তা আনুযায়ী সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন যে আপনার জন্য কাস্টম থিম ভালো হবে নাকি রেডিমেড থিম। পরিশেষে আপনার ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট নিয়ে যে কোন প্রয়োজনে YappoBD এর সাথে যোগাযোগ করতে পারেন যেকোন সময়।

Facebook Comment